1. Home
  2. Blog
  3. On the Top
  4. Types of Epilepsy seizures, Symptoms,Treatment and Best Neurologist
Types of Epilepsy seizures, Symptoms,Treatment and Best Neurologist
On the Top

Types of Epilepsy seizures, Symptoms,Treatment and Best Neurologist

  • February 14, 2023

International Epilepsy Day & All about Epilepsy related information

 

মৃগী রোগ কি তার ভ্রান্ত ধারণা : 

মৃগীরোগ হল একটি কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের (স্নায়বিক) ব্যাধি যেখানে মস্তিষ্কের কার্যকলাপ অস্বাভাবিক হয়ে যায়, যার ফলে খিঁচুনি বা অস্বাভাবিক আচরণ, সংবেদন এবং কখনও কখনও সচেতনতা হ্রাস পায়।

আমাদের সমাজে অনেকেই  মৃগী রোগ বা খিচুনি এই রোগের ব্যাপারে ছোট থেকে শুনে এসেছি। আর আমাদের সমাজে  একটা বদ্ধমূল ধারণা রয়েছে যে এই রোগের কোন প্রতিকার নেই। এমনকি এই রোগের হয়তো কোনো চিকিৎসাও। এমনকি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এই রোগ নিয়ে বিভিন্ন কুসংস্কারও রয়েছে। মৃগী উঠলে অনেকে চামড়ার জুতার ঘ্রাণ শুকায়, মুখে চামচ বা পয়সা দিয়ে থামানোর চেষ্টা করে ইত্যাদি।

মৃগী বা খিঁচুনী একটি নিরাময়যোগ্য রোগ। এর চিকিত্‍সা আছে। যথাযথ চিকিত্‍সায় এটি সম্পূর্ণ ঠিক  হতে পারে। সময়মত চিকিত্‍সা করানো হলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এটি ভালো হয়।

 

খিচুনী বা মৃগী দেখা দিলে কি করবেনঃ

১. আতঙ্কিত হবেন না।

২. মাথার নীচে নরম বালিশ দিয়ে রোগীকে এককাত্‍ করে শুইয়ে দিন এবং সময়গনণা শুরু করুন।

৩. রোগী যাতে পরে বা অন্য কোনভাবে বিশেষ করে মাথায় আঘাত না পায় সে দিকে লক্ষ্য রাখুন।

৪. কোনভাবেই থামানোর চেষ্টা করবেন না। মুখে চামচ, পয়সা বা জুতা ইত্যাদি কোন কিছু দিবেন না।  মনে রাখবেন, থামানোর চেষ্টা করলে উল্টো ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

৫. সাধারণত এমনিতেই কিছু সময় পর খিচুনী থেমে যায়। থেমে গেলে সময় দেখুন, কত মিনিট বা কত সেকেন্ড ছিল। চিকিত্‍সার জন্য সময়ের হিসাবটা কাজে লাগবে।

৬. তবে ৫ মিনিটের বেশি হলে তাত্‍ক্ষণিক ডাক্তারের নিকট নিয়ে যান।

৭. ব্যক্তির মুখে কিছু ফেলবেন না-এমনকি ওষুধ বা তরলও নয়।  এটি ব্যক্তির চোয়াল, জিহ্বা বা দাঁতের শ্বাসরোধ বা ক্ষতি হতে পারে।  মনে রাখবেন, খিঁচুনির সময় বা অন্য কোনো সময়ে লোকেরা তাদের জিহ্বা গিলে ফেলতে পারে না।

৮. খিঁচুনি শেষ হওয়ার পরে, ব্যক্তিটি বিরক্ত এবং ক্লান্ত হতে পারে।  তাদের মাথাব্যথা হতে পারে এবং তারা বিভ্রান্ত বা বিব্রত হতে পারে।  ব্যক্তিকে বিশ্রামের জায়গা খুঁজে পেতে সাহায্য করার চেষ্টা করুন।  প্রয়োজনে,  বন্ধু বা আত্মীয়কে কল করার অফার করুন যাতে সেই ব্যক্তি নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারে সে ব্যাপারে সাহায্য করুন।

মৃগীরোগ যে কারণে হয়

এই রোগ হওয়ার সুনির্দিষ্ট কারণ নেই তবে নিম্নোক্ত কারণগুলো থেকে মৃগীরোগ হওয়ার আশঙ্কা থাকে:

• জন্মের আগে বা জন্মের সময় বা পরে মস্তিষ্কে আঘাত।

• আঘাত এবং মস্তিষ্কে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের অভাব।

• সংক্রমণ যা মস্তিষ্কের ক্ষতি করে।

• মস্তিষ্কে রক্ত চলাচলে প্রতিবন্ধকতা (স্ট্রোক বা অন্যান্য সমস্যা)।

• পুষ্টির অভাব।

• মস্তিষ্কের টিউমার।

• অধিক মাত্রার জ্বর।

• মস্তিষ্কে প্রদাহ।

• এ ছাড়া অন্যান্য রোগ।

• মৃগীরোগ জেনেটিক প্রবণতা দ্বারা সৃষ্ট। উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রথম পর্যায়ের আত্মীয়দের মৃগীরোগের ঝুঁকি দুই থেকে চার গুণ বেড়ে যায়।

খিঁচুনি বিভিন্ন ধরনের কি কি?

 খিঁচুনির ধরন নির্ভর করে মস্তিষ্কের কোন অংশে এবং কতটা প্রভাবিত হয় এবং খিঁচুনির সময় কী ঘটে।  মৃগীরোগের খিঁচুনিগুলির দুটি  ভাগ হল সাধারণীকৃত খিঁচুনি এবং আংশিক (সরল এবং জটিল) খিঁচুনি।  এই বিভাগগুলির মধ্যে, শিশুদের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের খিঁচুনি রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

 *ফোকাল খিঁচুনি (Focal Seizures):   মস্তিষ্কের মাত্র একটি অংশে উদ্ভূত হয়।  মৃগীরোগে আক্রান্ত প্রায় 60 শতাংশ লোকের ফোকাল খিঁচুনি হয়।  এই খিঁচুনিগুলি প্রায়শই মস্তিষ্কের যে অঞ্চলে উদ্ভূত হয় তার দ্বারা বর্ণনা করা হয়।  অনেক লোকের ফোকাল ফ্রন্টাল লোব বা মিডিয়াল টেম্পোরাল লোব খিঁচুনি ধরা পড়ে।

কিছু ফোকাল খিঁচুনিতে, ব্যক্তি সচেতন থাকে কিন্তু সংবেদনশীল, বা মানসিক অনুভূতি অনুভব করতে পারে বা সংবেদন যা অনেক রূপ নিতে পারে।  ব্যক্তি আনন্দ, রাগ, দুঃখ বা বমি বমি ভাবের আকস্মিক এবং ব্যাখ্যাতীত অনুভূতি অনুভব করতে পারে। সে এমন কিছু শুনতে, গন্ধ, স্বাদ, দেখতে বা অনুভব করতে পারে যা বাস্তব নয় এবং শরীরের শুধুমাত্র একটি অংশের নড়াচড়া থাকতে পারে, উদাহরণস্বরূপ, শুধুমাত্র একটি হাত।

 অন্যান্য ফোকাল খিঁচুনিতে, ব্যক্তির চেতনায় পরিবর্তন হয়, যা স্বপ্নের মতো অভিজ্ঞতা তৈরি করতে পারে।  ব্যক্তি অদ্ভুত আচরণ প্রদর্শন করতে পারে যেমন পলক ফেলা, কামড়ানো, মুখের নড়াচড়া ব্যক্তিরা খিঁচুনি শুরু হওয়ার আগে শুরু করা কার্যকলাপগুলিও চালিয়ে যেতে পারে।  এই খিঁচুনি সাধারণত মাত্র এক বা দুই মিনিট স্থায়ী হয়।

*সাধারণ খিঁচুনি(Generalized seizures)

খিঁচুনি শুরু হওয়ার সময় থেকে মস্তিষ্কের সমস্ত অংশ জড়িত বলে মনে হয় তাকে সাধারণ খিঁচুনি বলা হয়।  বিভিন্ন ধরনের সাধারণ খিঁচুনি অন্তর্ভুক্ত:

অনুপস্থিতি খিঁচুনি (Absence seizures)  অনুপস্থিতির খিঁচুনি সাধারণত একজন ব্যক্তিকে মহাকাশের দিকে তাকাতে বা সূক্ষ্ম শরীরের নড়াচড়া করতে দেয় যেমন চোখের পলক ফেলা বা ঠোঁট ফাটানো।  এগুলি সাধারণত 5 থেকে 10 সেকেন্ড স্থায়ী হয়।  এই খিঁচুনি দিনে শত শত বার পর্যন্ত ঘটতে পারে। 

• টনিক খিঁচুনি ( Tonic seizures ) টনিক খিঁচুনির কারণে পেশী শক্ত হয়ে যায়।  এই খিঁচুনিগুলি সাধারণত পিছনে, বাহু এবং পায়ের পেশীগুলিকে প্রভাবিত করে।  যারা এই খিঁচুনি অনুভব করে তারা চেতনা হারাতে পারে এবং মাটিতে পড়ে যেতে পারে।

• অ্যাটোনিক খিঁচুনি(Atonic seizures) অ্যাটোনিক খিঁচুনি, যা ড্রপ খিঁচুনি নামেও পরিচিত, পেশী নিয়ন্ত্রণের ক্ষতি করে।  এই ধরনের খিঁচুনিতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা হঠাৎ করে নিচে পড়ে যেতে পারে।

• ক্লোনিক খিঁচুনি(Clonic seizures)  ক্লোনিক খিঁচুনি বারবার ঝাঁকুনি দেওয়া পেশী আন্দোলনের সাথে যুক্ত।  এই খিঁচুনিগুলি সাধারণত শরীরের উভয় পাশে ঘাড়, মুখ এবং বাহুকে প্রভাবিত করে

• মায়োক্লোনিক খিঁচুনি(Myoclonic seizures)  মায়োক্লোনিক খিঁচুনি সাধারণত আকস্মিক সংক্ষিপ্ত ঝাঁকুনি বা হাত ও পায়ের মোচড় অনুভব হয় । চেতনার কোন ক্ষতি হয় না।

• টনিক-ক্লোনিক খিঁচুনি(Tonic-clonic seizures) টনিক-ক্লোনিক খিঁচুনীতে  হঠাৎ চেতনা হারাতে পারে, শরীর শক্ত হয়ে যায় এবং কাঁপতে পারে।  কখনও কখনও লোকেরা তাদের মূত্রাশয়ের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে বা তাদের জিহ্বা কামড়ায়।  কয়েক মিনিট স্থায়ী হতে পারে এই খিঁচুনি টনিক-ক্লোনিক খিঁচুনিগুলি ফোকাল খিঁচুনি হিসাবেও শুরু হতে পারে যা পরে বেশিরভাগ বা সমস্ত মস্তিষ্কের সাথে জড়িত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে।

কখন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে

 চেকআপের জন্য নিয়মিত আপনার ডাক্তারের সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বছরে অন্তত একবার তাদের পারিবারিক ডাক্তার বা মৃগীরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে দেখানো দরকার। আপনি যদি কোনো নতুন উপসর্গ অনুভব করেন বা আপনার ওষুধ পরিবর্তন করার পর আপনি যদি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করাও একটি ভাল ধারণা।

মৃগীরোগের চিকিৎসা

মৃগীরোগের চিকিৎসা প্রধানত কয়েকটি বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল; যেমন:

অ্যান্টি-এপিলেপটিক ওষুধ

অ্যান্টি-এপিলেপটিক ওষুধগুলোর সাধারণত পছন্দসই চিকিৎসাব্যবস্থা। প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, ৭০ শতাংশ ঘটনায় ওষুধ দিয়েই উপসর্গগুলো বা খিঁচুনি নিয়ন্ত্রণ বা নিরাময় করা গিয়েছে। মস্তিষ্ক থেকে নিঃসৃত হওয়া রাসায়নিকগুলোর পরিমাণ পরিবর্তন করে এই ওষুধগুলো খিঁচুনির তীব্রতা ও পুনরাবৃত্তির হার হ্রাস করতে সাহায্য করে। যদিও এই ওষুধগুলো মৃগীরোগের নিরাময় করতে পারে না, কিন্তু নিয়মিত চিকিৎসায় খিঁচুনির ঘটনার পুনরাবৃত্তির হার হ্রাস করে। এই ওষুধগুলো বিভিন্ন ধরনের পাওয়া যায়।

চিকিৎসার শুরুতে ওষুধ অল্প মাত্রায় প্রয়োগ করা হয় এবং খিঁচুনির ঘটনা না থামা পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে ধীরে ধীরে ওষুধের মাত্রা বৃদ্ধি করা হয়। কোনো অর্থপূর্ণ প্রতিক্রিয়া বা উন্নতি না দেখা গেলে চিকিৎসক ওষুধ পরিবর্তন করতে পারেন। মৃগীরোগের ধরনের ওপরে ওষুধের ধরন নির্ভর করে এবং শুধু একজন চিকিৎসকই এই ওষুধগুলো প্রেসক্রাইব করতে পারেন। 

কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে তৎক্ষণাৎ তা ডাক্তারকে জানাতে হবে। সুতরাং যেভাবে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, ওষুধগুলো ঠিক সেইভাবেই সেবন করতে হবে। ওষুধের মাত্রা পরিবর্তন করার আগে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে নিতে হবে। ডাক্তারের অনুমতি ছাড়া ওষুধ বন্ধ করা যাবে না। রোগীর মেজাজের কোনো পরিবর্তন লক্ষ করলে ডাক্তারকে তা জানাতে হবে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অধিকাংশ অ্যান্টি-এপিলেপটিক ওষুধই বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং রোগী কোনো উপসর্গ ছাড়াই বাঁচতে পারবেন।

শল্য চিকিৎসা

দুটি প্রধান ধরনের আছে:

 রিসেক্টিভ সার্জারি :  সার্জন আপনার মস্তিষ্কের যে অংশটি খিঁচুনি সৃষ্টি করে তা সরিয়ে ফেলবেন।  এই অস্ত্রোপচারটি প্রায়শই করা হয় যখন মস্তিষ্কের যে অংশটি খিঁচুনি সৃষ্টি করে তা খুব ছোট হয়, খুব ভাল সীমানা থাকে এবং আপনার কথাবার্তা, নড়াচড়া, দৃষ্টিশক্তি বা শ্রবণশক্তি নিয়ন্ত্রণ করে না।

 সংযোগ বিচ্ছিন্ন সার্জারি: আপনার মস্তিষ্কের অংশ অপসারণ করার পরিবর্তে, সার্জন আপনার মস্তিষ্কের স্নায়ুর মধ্যবর্তী পথগুলি কেটে দেবেন যা আপনার খিঁচুনিতে জড়িত থাকে।

মৃগীরোগ নিয়ন্ত্রণে জীবনধারা পরিবর্তন :-

• ঘুমানোর জন্য তাড়াতাড়ি শুয়ে পড়ার চেষ্টা করুন।

• শ্বাসের হালকা ব্যায়াম করুন।

• মদ্যপান কম করুন।

• যদি খিঁচুনি খুব ঘন ঘন হয় তবে এই কাজগুলি করবেন না যেমন, গাড়ি চালানো, সাঁতার কাটা এবং রান্না করা। এইগুলি করার সময় খিঁচুনি হলে তা খুবই ক্ষতিকারক হবে।

• বাড়ির আসবাবপত্রগুলির কোণগুলি যেন মসৃণ হয়।

• স্নান করার সময় স্নান-ঘরের দরজা বন্ধ করবেন না।

• বাথটাবে স্নান করার বদলে শাওয়ার ব্যবহার করুন। এতে খিঁচুনি শুরু হলে বাথটাবে ডুবে যাওয়ার আশঙ্কা থাকবে না।

• সাঁতার কাটার সময় এমন সঙ্গী সাথে রাখুন যে আপনার খিঁচুনি শুরু হলে আপনাকে উদ্ধার করতে পারবে।

• নিয়মিত ওষুধ গ্রহণ করবেন। ডাক্তারবাবুর অনুমতি ছাড়া ওষুধ গ্রহণ এড়িয়ে যাবেন না বা বন্ধ করবেন না।

2023 মৃগী রোগের থিমের তাৎপর্য

 মৃগীরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা কলঙ্ক এবং বৈষম্যের শিকার হন।  এই কারণে, রোগ এবং এর প্রতিকার সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়া অপরিহার্য। তাই প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সোমবার International epilepsy day পালন করা হয়।


কিছু মৃগীরোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টরদের তালিকা নিম্নে দেওয়া হলো:-

Dr.Debabrata Chakraborty

Neurologist - Specializes in Epilepsy Treatment

DM - Neurology, Fellowship in Stroke Neurology, MD - General Medicine, MBBS Bachelor of Medicine and Bachelor of Surgery

Kankurgachi,  Kolkata

Dr.Barun Kumar Sen

 Neurologist - Specializes in Epilepsy Treatment

 MBBS,MD(medicine), DM - Neurology

 Beniapukur,  Kolkata

Dr.Amit Kumar Ghosh

Neurosurgeon - Specializes in Epilepsy Treatment

MBBS, DNB, Fellowship In Neurosurgery

Mallik Bazar,  Kolkata

Dr.Sukalyan Purkayastha

Neurosurgeon - Specializes in Epilepsy Treatment

MBBS, MD - Radiology, DNB (Radiology), DM (Diagnostic & Interventional Neuroradiology), CCST (UK)

New Barrackpore,  Kolkata

 

Users Review

Add Your Review

       
   Can't Read ? Click Refresh